ইসলাম ও বিজ্ঞান বিষয়ক আলোচনা

﷽  ‎ 💠 বিঃদ্রঃ  [  বিজ্ঞান মানুষের সীমিত জ্ঞানের উপর ভিত্তি করে , আর কুরআন সর্বোজ্ঞ সর্বশক্তিমান, সবকিছুর মালিক আল্লাহর ওহী তাই কুরআন সবসময়ই বিজ্ঞানের থেকে অগ্রগামী । এই আর্টিকেলে আমি কুরআনের বর্ণনার সাথে বিজ্ঞানের বর্তমান আবিষ্কার ও তত্ত্বের মিলগুলো তুলে ধরার চেষ্টা করেছি মাত্র । আসল বিষয় কেমন সেটা একমাত্র সর্বোজ্ঞ মহান রাব্ব আল্লাহﷻ‎ ভালো জানেন  ] অভিযোগ: পরবর্তীতে আলোচনার সুবিধার্থে আমরা অভিযোটি দুটি পয়েন্টে ভাগ করে নেবো । 💠পয়েন্ট -১.১: কুরআনের বেশ কিছু আয়াতে(৭:৫৪, ১০:৩, ১১:৭, ২৫:৫৯, ৩....
17 Min read
Read more
    Fun – মাছ থেকে মানুষের বিবর্তন সকল বিষয়ে নোবেল-বিজয়ী’সহ গ্যালিলিও-নিউটন-আইনস্টাইনের মতো বিখ্যাত বিজ্ঞানীদের কেউই কোনো ধর্মবিদ্বেষী ছিলেন না, এখনো নেই। গ্যালিলিও ও নিউটন বরং আস্তিক ছিলেন। আর আইনস্টাইন অন্ততঃ স্বঘোষিত নাস্তিক ছিলেন না। এদিকে তিনজন বিজ্ঞানী’সহ যে’কজন মুসলিম নামধারী নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন তাঁদের সকলেই ইসলামে বিশ্বাসী।কারন ইসলামের সাথে বিজ্ঞানের কোন বিরোধ তারা পান নি, শুধু বিবর্তনবাদ ছাড়া। ভাবুন তো, বিজ্ঞানের সাথে কোন বিরোধ না থাকা সত্বেও বিবর্তনবাদ একা কেন ইসলামের সাথে শত্রুতা ....
2 Min read
Read more
***বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম***    মহাবি‌শ্বের সার্বভৌমত্ত্বের একমাত্র অধীকারী ও পরম করুণাময় আল্লাহ্ তায়ালার পবিত্র বাক্য দিয়ে শুরু হউক।         এখানে লিখিত দপ্তর কথাটি খুব সাধারন মনে হলেও আসলে এর মধ্যে অসাধারন এক আধুনিক বিজ্ঞানের এক আসাধারন এক তথ্য লুখিয়ে রয়েছে। যেটি সাড়ে চৌদ্দশত বৎসর পূর্বে মরুর প্রান্তের কোন মানুষের পক্ষে এ‌টি চিন্তা করাটা কখনো সম্ভব হতে পারে না। আমাদের স্বাভাবিক জীবনে লিখিত দপ্তর অর্থ কোন অফিসিয়াল যেকোন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সকল প্রকার দাপ্তরিক রেকর্ড বা আইনের কপি সংরক্ষ....
5 Min read
Read more
গ্রীকরা পর্যন্ত বিশ্বাস করত না যে, সন্তান জন্মদানে নারীদের কোন অবদান আছে। এরিস্টটল মনে করত যে, পুরুষের বীর্য নারীর ঋতুস্রাবের রক্তের সাথে মিশে একসময় ভ্রূণ গঠন করে। ভারতীয় বিজ্ঞানী চরক ও মহর্ষি সুশ্রুত নারীর বীর্য বলতে ‘আর্তযা রক্ত’ বুঝাতো। বিস্তারিত জাকির নায়েকের সাথে উইলিয়াম ক্যাম্পবেলের বক্তব্যে পাবেন। কিন্তু রাসূলুল্লাহ [সাঃ] বললেন যে, নারীর রক্ত নয়, নারীর বীর্য তথা ডিম্বাণু ভ্রূণ গঠন করেন। অবশ্য, গ্যালেন মনে করতেন যে, নারীর শুক্রাণু আছে। কিন্তু তিনি মূলত নারীর যোনি রসকে বীর্য ভেবেছিলেন, যা ....
3 Min read
Read more
আল-মুকাদ্দিমা বই থেকে   আমাদের জবাবঃ ইবনে খালদুন ইসলামে বিশ্বাস করতেন এবং তার লেখা অনুযায়ী আদম হচ্ছেন প্রথম মানব। তাছাড়া ইবনে খালদুন বিবর্তনের বিষয়ে কথা বলছিলেন না, বরং সৃষ্টির ক্রমের প্রাচীন গ্রিক দার্শনিক ধারণার পুনরাবৃত্তি করছিলেন। নিচের ছবি অনুযায়ী তার দৃষ্টিকোণ হচ্ছে, মানুষের উপরে ফেরেশতাদের অবস্থান এবং শ্বেতাঙ্গদের অবস্থান কৃষ্ণাঙ্গদের উপরে। এসব গ্রীকদের বানানো ক্রমবিন্যাস, যা তিনি তার বইয়ে উল্লেখ করেছেন মাত্র। তবে গ্রীকদের এই শ্রেণিভাগ ইসলামের বিপরীত। কারন, মানুষের মর্যাদা তার গাত্র....
2 Min read
Read more
  Contents ভুল কোথায়?. 1 সূর্য প্রদীপ, চাঁদ নয়. 2 তাফসীর ও আলোর শ্রেণিভেদ. 2 নূর শব্দের অর্থ. 3 সম্ভাব্য কুযুক্তি... 3 মহান আল্লাহ বলেন, وَّ جَعَلَ الۡقَمَرَ فِیۡہِنَّ نُوۡرًا وَّ جَعَلَ الشَّمۡسَ سِرَاجًا “আর চন্দ্রকে স্থাপন করেছেন আলোক রূপে আর সূর্যকে প্রদীপরূপে”। (কুরআন, ৭১ঃ১৬) উপরের আয়াত নিয়ে অভিযোগ হল, ‘নূর’ শব্দের অনুবাদ ‘প্রতিফলিত আলো’ করা নাকি ভুল! তো আমি বেশ কিছু ধাপে জবাব দিব। ভুল কোথায়? শুধু উপর্যুক্ত আয়াতের উপর ভিত্তি করে: ‘আত-তাহরীর ওয়াত-তানওয়ীর’ কিতাবে ‘নূর’ শব্দ নিয়ে বলা আছে, “স....
11 Min read
Read more
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম  রব্বি যিদনী ইলমা  বিষয়:-"পবিত্র কোরআনের রহস্যময় আয়াতের ঘটনা বিশ্লেষণ আলোচনা :-বাদশাহ যুলকার নাইনের প্রাচীর কেন দেখা যায় না? \___________________________________/ আসসালামু আলাইকুম প্রিয় ভাই ও বোনেরা। আজকে আমরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়ে আলোচনা করব ইনশাআললাহ।আপনারা সবাই জানেন যে যুলকার নাইন একজন ন্যায়পরায়ণ সৎ ও আল্লাহ্ ভীরু সমগ্র পৃথিবীর (পূর্ব-পশ্চিম) বাদশাহ ছিলেন। যিনি ইয়াজুজ এবং মাজুজের জন্য একটি প্রাচীর তৈরি করেছিলেন তাদের কে সাধারণ মানুষ থেকে আলাদা করে দেওয়ার জ....
6 Min read
Read more
কোরআনে বিজ্ঞান প্রযুক্তি পর্ব:১ আলোচনা:-"বিশ্বজগৎ সৃষ্টি:মহাবিস্ফোরণ The Big Bang" \_________________________________/ জ্যোতির্বীদগণ (Astrophysicist) বিশ্বজগতের সৃষ্টি সম্পর্কে সুনিপুণ ব্যাখ্যা করেছেন ব্যাপকভাবে গ্রহণীয় বিস্ময়কর ঘটনায় যা "মহাবিস্ফোরণ"-বা "Big Bang Theory "-নামে জনপ্রিয়ভাবে পরিচিত।বহুদশক ভাবে জ্যোতির্বীদ জ্যোতিপদার্থবিদগণ কতৃক সংগৃহীত পর্যবেক্ষণমূলক ও গবেষণামূলক তথ্য উপাত্ত দ্বারা এটা সমর্থিত।"মহাবিস্ফোরণ"-বা "Big Bang Theory"- তথ্য অনুযায়ী সমগ্র বিশ্বজগৎ প্রাথমিক বা আদি অবস্থায়....
2 Min read
Read more
কোরআনে বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তি পর্ব:২ আলোচনা:-ছায়াপথ সৃষ্টির পূর্বে ছিল আদিগ্যাসীয় পুঞ্জ  \________________________________/ বিজ্ঞানীগণ বলেন যে ,মহাবিশ্বে ছায়াপথ গঠনের পূর্বে মহাকাশীয় বস্তু ছিল আদিতে গ্যাসীয় পদার্থের আকারে।সংক্ষেপে বললে বলা যায় যে,ছায়াপথ সৃষ্টির পূর্বে বিপুল গ্যাসীয় পদার্থ বা মেঘমালা বিদ্যমান ছিল। আদি মহাকাশীয় বস্তু কে "গ্যাসের"-চেয়ে "ধুম"- শব্দের দ্বারা বর্ণনা করা অধিকতর সঠিক। মহিমান্বিত ঐশীগ্রন্থ পবিত্র আল কোরআনে বিশ্বজগতের অবস্থার বর্ণনা প্রসঙ্গে সেখানে "দুখান"-শব্দের উল্লেখ রয়ে....
2 Min read
Read more
কোরআনে বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তি পর্ব:৩ আলোচনা:পৃথিবীর গোলাকার আকৃতি সম্পর্কে পবিত্র আল কোরআন! \____________________________________/ আদিমকালে মানুষ বিশ্বাস করতো যে,পৃথিবী চ্যাপ্টা।বহু শতাব্দীব্যাপী মানুষ পরিভ্রমণে বহুদূর পর্যন্ত গমনে ভয় পেত এই কারণে যে,পাছে সে পৃথিবীর কিনারা হতে পড়ে যায়?স্যার ফ্রান্সিস ড্রেক (Sir Francis Drake) হলেন প্রথম ব্যক্তি যিনি ১৫৯৭ খ্রিস্টাব্দে পৃথিবীর চারিদিকে জলপথে ভ্রমণ করে প্রমাণ করেছিলেন যে পৃথিবী গোলাকারের ন্যায়। দিন ও রাতের পরিবর্তন সম্পর্কে কোরআনে বলা হয়েছে সূরা লোক্....
5 Min read
Read more
কোরআনে বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তি পর্ব:-৪ আলোচনা:চাঁদের আলো হলো প্রতিফলিত আলো! \_________________________________/ প্রাচীন সভ্যতাগুলো বিশ্বাস করত যে,চাঁদ নিজেই নিজের আলো ছড়ায় কিন্তু আধুনিক বিজ্ঞান আজ আমাদের বলে যে,চাঁদের নিজস্ব কোন আলো নেই বরং চাঁদের যে আলো তা হলো প্রতিফলিত আলো (Reflection Light)।আর মহিমান্বিত ঐশীগ্রন্থ পবিত্র আল কোরআন ১৪০০+ বছর আগে থেকেই এই সত্য বৈজ্ঞানিক তথ্যটি আমাদের কে জানিয়ে দিয়েছে সূরা আল ফুরকান (الفرقان), আয়াত: ৬১-তে   تَبَارَكَ ٱلَّذِى جَعَلَ فِى ٱلسَّمَآءِ بُرُوجًا وَجَعَلَ ....
4 Min read
Read more
কোরআনে বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তি পর্ব:০৫ আলোচনা:-"সম্প্রসারণশীল মহাবিশ্ব সম্পর্কে কোরআন কী বলে? \___________________________________/ ১৯২৫ সালে এডউইন হাবল (Edwin Hubble) নামে এক আমেরিকান জ্যোতির্বিজ্ঞানী পর্যবেক্ষণমূলক সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে ঘোষণা করেন যে,ছায়াপথ গুলো পরস্পর পরস্পরের থেকে দূরে সরে যাচ্ছে অর্থাৎ যার অর্থ হলো মহাবিশ্বের সম্প্রসারণ হচ্ছে। মহাবিশ্বের এই প্রসারণ আজ বৈজ্ঞানিক সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত। মহিমান্বিত ঐশীগ্রন্থ পবিত্র আল কোরআনে মহাবিশ্বের সম্প্রসারণ সম্পর্কে সর্বশক্তিমান ঈশ্বর ম....
3 Min read
Read more
1 3