MH Emon 's Articles

আসুন দেখি প্রথমে এ বিষয়ে পবিত্র কুরআন কী বলে!   যারা সেই নিরক্ষর রাসূলের অনুসরণ করে চলে যার কথা তারা তাদের নিকট রক্ষিত তাওরাত ও ইঞ্জীল কিতাবে লিখিত পায়। (৭:১৫৭)।  এখানে সুস্পষ্ট বলা আছে যে পবিত্র কুরআন বলছে মুহাম্মদ সা: সম্পর্কে তাওরাত ও ইজ্ঞিলে ভবিষ্যত বাণী করা হয়েছিলো। বাইবেলে মুহাম্মদ সাঃ সম্পর্কে বাইবেলের Old Testament ও New Testament এ বলা আছে। তাকে নিয়ে ভবিষ্যৎবাণী করা হয়েছিলো,   আজ আমরা তাই প্রমান করবো বাইবেল থেকে ।    15. প্রভু, তোমাদের ঈশ্বর, তোমাদের জন্য একজন ভাববাদী পাঠাবেন| তোমাদের ....
7 Min read
Read more
প্রথমে দেখি কুরআন কি বলে যিশু/ঈসা আঃ কে নিয়ে- কুরআন মতে যিশু বা ঈসা আ. মারা যায়নি, তিনি এখনো জীবিত!   প্রমান: আর তাদের একথা বলার কারণে যে, আমরা মরিয়ম পুত্র ঈসা মসীহকে হত্যা করেছি যিনি ছিলেন আল্লাহর রসূল। অথচ তারা না তাঁকে হত্যা করেছে, আর না শুলীতে চড়িয়েছে, বরং তারা এরূপ ধাঁধায় পতিত হয়েছিল। বস্তুতঃ তারা এ ব্যাপারে নানা রকম কথা বলে, তারা এক্ষেত্রে সন্দেহের মাঝে পড়ে আছে, শুধুমাত্র অনুমান করা ছাড়া তারা এ বিষয়ে কোন খবরই রাখে না। আর নিশ্চয়ই তাঁকে তারা হত্যা করেনি। (সূরা: আন নিসা, আয়াত: ১৫৭)। (আলহামদ....
11 Min read
Read more
বেশ কিছু দিন ধরে নাস্তিকরা বলে আসছে কুরআনের সূরা কলম আয়াত ১০ এ  আল্লাহ বলেছেন, যারা অধিক শপথ গ্রহণ করে তাদের আনুগত্য না করতে। অথচ আল্লাহ তায়ালা কুরআনের বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন বস্তুর শপথ করেছেন।  আনুগত্য অর্থ:-  মান্য করা, মেনে চলা, আদেশ ও নিষেধ পালন করা।  এ অভিযোগের জবাব :-  আসুন দেখি সূরা কলমে ঠিক কী বলা হয়েছে,  وَلَا تُطِعْ كُلَّ حَلَّافٍ مَّهِينٍ তুমি তার আনুগত্য করবে না যে অধিক শপথ করে, আর যে (বার বার কসম খাওয়ার কারণে মানুষের কাছে) লাঞ্ছিত। (সূরা কলম আয়াত ১০) মূর্খ নাস্তিক ইসলাম-বিদ্বেশীরা ....
8 Min read
Read more
যিশু ঈশ্বর খ্রিস্টানদের ১২ টি যুক্তি খন্ডন! Counter Post. একদল খ্রিস্টান যিশুকে ১২ টি কারনে ঈশ্বর  দাবি করেছে ! যুক্তি খন্ডন করার আগে তাদের সেই ১২ টি কারণ দেখে নেয় ।  ১। যোহন ১০:৩০ " আমি ও পিতা, আমরা এক। " এখানে যীশু নিজেকে ঈশ্বর বলেছেন। ২। যোহন ১৪:১  "তোমাদের হৃদয় উদ্বিগ্ন না হউক; ঈশ্বরে বিশ্বাস কর, আমাতেও বিশ্বাস কর।" ৩। মথি ১২:৮  "কেননা মনুষ্যপুত্র বিশ্রামবারের প্রভু।" ৪। "যীশুকে জানাই হল ঈশ্বর কে জানা" - যোহন ৮:১৯। ৫। "যীশুকে দেখাই হল ঈশ্বরকে দেখা" - যোহন ১৪:৯। ৬। "যীশুকে ঘ্রিণা করাই হল ....
11 Min read
Read more
দাস-প্রথা প্রাচীন একটি বর্বর-জঘন্য প্রথা। রোমানরা এটা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিয়েছিল। তারা কোন যুদ্ধে জয় লাভ করলে শত্রুপক্ষের নারীদের বন্দী করে গোলাম বা কৃতদাস বানিয়ে রাখতো। রোমানরাই হতো তাদের প্রভু। যারা বন্দী হয় তারা হয় রোমানদের কৃতদাস। রোমানরা যা আদেশ করে তাই সেই নারীদের চোখ বন্ধ করে পালন করতে হতো। নারীদের অমানবিক নির্যাতন ও দাসী সেক্স করা হতো। তাদেরকে সারা জীবনই দাস-দাসী বানিয়ে রাখতো । বর্তমানে এই প্রথার বিলুপ্তি ঘটেছে। কিন্তু ইসলাম এই সম্পর্কে কী বলে আসুন দেখি :-  আমরা আল্লাহর দাস/গোলাম । কারণ ....
10 Min read
Read more
জবাব:- জাতির পিতা ইব্রাহিম আঃ এর সময় থেকে খৎনা করার প্রথা চলে আসছে। নবী ইব্রাহিম আঃ সর্বপ্রথম সুন্নতে খৎনা করেন।   وَإِذِ ابْتَلَىٰ إِبْرَاهِيمَ رَبُّهُ بِكَلِمَاتٍ فَأَتَمَّهُنَّ ۖ قَالَ إِنِّي جَاعِلُكَ لِلنَّاسِ إِمَامًا ۖ قَالَ وَمِنْ ذُرِّيَّتِي ۖ قَالَ لَا يَنَالُ عَهْدِي الظَّالِمِينَ যখন ইব্রাহীমকে তাঁর পালনকর্তা কয়েকটি বিষয়ে পরীক্ষা করলেন, অতঃপর তিনি তা পূর্ণ করে দিলেন, তখন পালনকর্তা বললেন, আমি তোমাকে মানবজাতির নেতা করব। তিনি বললেন, আমার বংশধর থেকেও! তিনি বললেন আমার অঙ্গীকার অত্যাচারী....
10 Min read
Read more
Micheal Hart :- আমেরিকা থেকে প্রকাশিত যে বইটি সর্বত্র সর্বাধিক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে তার নাম হলো , The-100 Micheal Haert.      Micheal Hart এর সময় পাশ্চাত্যে অমুসলিম দেশ আমেরিকায় এক ব্যাপক গবেষণা জরিপ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। গবেষণার বিষয়বস্তু ছিল, পৃথিবীর সর্ব শ্রেষ্ঠ মানব কে এবং বিশ্বের ইতিহাসে কার প্রভাব সর্বাধিক? এই গবেষণার ও জরিপের সমস্ত ফলাফল, বিশ্লেষণ ও পর্যবেক্ষণের পর ঐতিহাসিক ও বিজ্ঞানী Micheal Hart তার বইয়ে পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ মনীষী, রাজনীতিবিদ, সমাজ সেবক, বিজ্ঞানী ও ধর্মীয় নেতাদের মধ্য থেক....
12 Min read
Read more
জিহাদ বলতে অমুসলিমরা সাধারণত "যুদ্ধ" বুঝে থাকে। খ্রিস্টান মিশনারীরা যখনই বিতর্কে হেরে যায়, তখনই আলোচনা ঘুরাতে ইসলামের জিহাদ নিয়ে মিথ্যাচার করা শুরু করে। আজ আমরা বাইবেলের আলোকে "যুদ্ধ" সম্পর্কে জানবো। যুদ্ধ নিয়ে বাইবেলে কী কিছু বলা আছে? বাইবেলের কিছু যুদ্ধের চিত্র আপনাদের সামনে তুলে ধরছি। ঈশ্বর নিজেকে, ঈশ্বর প্রমান করতে ১ লক্ষ ২৭ হাজার মানুষকে হত্যা করে: 23. রাজা বিন্হদদের রাজকর্মচারীরা তাঁকে বললেন, “ইস্রায়েলের দেবতারা আসলে পর্বতের দেবতা| আর আমরা পর্বতে গিয়ে যুদ্ধ করেছি তাই ইস্রায়েলের লোকরা জ....
17 Min read
Read more
Old Testament (Torah) Old Testament এর প্রথম ৫ টি বইকে ইহুদিরা বলে (Torah) যা বাংলায় বলা হয় তাওরাত। এই বই গুলো ইহুদি খ্রিস্টানদের ধর্মীয় বিশ্বাস অনুুযায়ী তাদের ভাববাদী মোশি লিখেছে৷ মোশির লিখা ৫ টি বই যথাক্রমে :- 1. Genesis . বাংলাতে (আদিপুস্তক) 2. Exodus. বাংলাতে (যাত্রাপুস্তক) 3. Leviticus . বাংলাতে ( লেবীয় পুস্তক) 4. Numbers. বাংলাতে (গণণা পুস্তক) 5. Deuteronomy.  বাংলাতে (দ্বিতীয় বিবরণ) ◉ এগুলোকে খ্রিস্টান ও ইহুদিরা মনে করে মোশি লিখেছে। এই ৫ টি বইয়ের নাম Torah বা তাওয়াত। মোশির লিখা তাওরাত সং....
16 Min read
Read more
কোরআন সূরা (৩৫:৮) অনুযায়ী, আল্লাহ কী মানুষকে ইচ্ছা করে পথভ্রষ্ট করেন ও সঠিক পথে আনেন ? এ অভিযোগের জবাব - আসুন দেখি সূরা (৩৫:৮) এ ঠিক কী বলা হয়েছে أَفَمَنْ زُيِّنَ لَهُ سُوءُ عَمَلِهِ فَرَآهُ حَسَنًا ۖ فَإِنَّ اللَّهَ يُضِلُّ مَنْ يَشَاءُ وَيَهْدِي مَنْ يَشَاءُ ۖ فَلَا تَذْهَبْ نَفْسُكَ عَلَيْهِمْ حَسَرَاتٍ ۚ إِنَّ اللَّهَ عَلِيمٌ بِمَا يَصْنَعُونَ যাকে মন্দকর্ম শোভনীয় করে দেখানো হয়, সে তাকে উত্তম মনে করে, সে কি সমান যে মন্দকে মন্দ মনে করে। নিশ্চয় আল্লাহ যাকে ইচ্ছা পথভ্রষ্ট করেন এবং যাকে ইচ্ছা....
18 Min read
Read more
বাইবেলের নতুন নিয়ম বা New Testament-এর বই গুলো কে লিখেছে?  New Testament - নতুন নিয়ম  নতুন নিয়মে ২৭ টি বই আছে। বলে রাখা ভালো যে, নতুন নিয়মের কোন বইই ঈশ্বর প্রদত্ত না। সব গুলো বইই মানুষ লিখেছে কোনটায় ঈশ্বরের বাণী না । তবে এর মধ্যে ৪ টা বই গুরুত্বপূর্ণ যেগুলোতে খ্রিস্টানরা মনে করে, সেগুলোতে যিশুর বাণী রয়েছে। আর এই বাণী যিশু ঈশ্বর থেকে এনেছে এমন ধারণা খ্রিস্টানদের। এই চারটি বই যিশুর ৪জন শিষ্য লিখেছে বলে একমত সব খ্রিস্টান।  গুরুত্বপূর্ণ ৪ টি বই হলো :- 1. Matthew বাংলাতে (মথি)  2. Mark বাংলাতে (মার্....
6 Min read
Read more
মুসলিমরা কী কাবা-ঘরের কালো পাথর বা হাজরে আসওয়াদের ইবাদত করে?   জবাব :- না! কখনোই না। আমরা মুসলিমরা কখনোই কালো পাথরের পূজা করি না।  আমরা কেবল আল্লাহর ইবাদত করি। তিনি আমাদের প্রভু৷  কাবা-ঘর আমাদের কিবলা। আমরা এই দিকে ফিরে সালাত আদায় করি। কাবা না থাকলে আমরা মুসলিমরা একেকজন-একেক দিকে ফিরে সালাত আদায় করতাম। কিন্তু কাবা ঘর থাকার কারণে আমরা সব মুসলিমরা যে-যেই প্রান্তেই থাকি না কেন! আমরা কাবা-ঘরের দিকে ফিরে সালাত আদায় করি। কারণ কাবা আমাদের কিবলা।  মুসলিমরা কাবা-ঘরের ইবাদত করে না প্রমাণ -  فَلْيَعْبُدُو....
4 Min read
Read more
1 6