ইসলামে নারীরা ও তালাক দিতে পারে ।

অজ্ঞতা :
ইসলামে তালাকের অধিকার শুধু পুরুষদের দেয়া হয়েছে। নারীকে তালাক দেয়ার অধিকার দেয়া হয়নি।নারীর ইচ্ছা অনিচ্ছার কোন মূল্য নাই এই ধর্মে।
অজ্ঞতার জবাব:

ইসলামে নারীরা ও তালাক দিতে পারে:

তালাক শব্দের অর্থ হচ্ছে বিয়ে বিচ্ছেদ। আর ইসলামি শরিয়তে তালাক নিকৃষ্ট কাজ বলে সাব্যস্ত করা হয়েছে। রাসূল সা: এক হাদিসে বলেন , “তালাক হচ্ছে সবচেয়ে নিকৃষ্ট হালাল কাজ।” আর তালাক দেওয়ার ক্ষমতা শর্ত সাপেক্ষে নারী পুরুষ উভয়কে দেওয়া হয়েছে।  নারী পুরুষের তালাক দেওয়ার ক্ষমতার মাঝে পার্থক্যের পেছনে অনেক হিকমত আছে। জ্ঞানী নারী ও পুরুষ সকলেই জানেন – পুরুষের তুলনায় নারীগণ চঞ্চলমতি হন। তারা খুব সহজেই কারো প্রতি খুশি হন, আবার অল্পতেই কাউকে শত্রুভাবা শুরু করেন। তাই, তারা যদি এতো সহজেই তালাক দেওয়ার অধিকারিণী হন তাহলে ভবিষ্যতে সংসারে এটা তাদের স্বামীর প্রতি বিরূপ প্রভাব ফেলবে। স্বামীর সাথে মনোমালিন্য হলেই খুব সহজেই সম্পর্কছিন্ন করার মতো কঠিন সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলতে পারেন। তবে কোনো নারীর যদি সত্যিই উপযুক্ত কারণ থাকে তার স্বামীকে ছেড়ে দেওয়ার মতো, (যেমন স্বামী ব্যভিচারী অথবা স্বামী কর্তৃক মারধরের কারণ শারীরিক ক্ষতির আশংকা থাকে, স্বামী দুঃশ্চরিত্রের হয়ে থাকে), তাহলে তার সুযোগ আছে “খোলা” করে তার কাছ থেকে নিষ্কৃতি পাওয়ার জন্য। খোলা শব্দের অর্থ হচ্ছে পৃথক হওয়া। 

ইসলামে তালাকের ৫টি পদ্ধতি আছে- 

প্রথম: এ চুক্তির মাধ্যমে স্বামী-স্ত্রী উভয়েই বলবে ব্যাস আমরা আর একসাথে ঘর করার মত উপযুক্ত নই- চল আমরা উভয়কে ছেড়ে দেই। 

দ্বিতীয়: এই প্রকার তালাক স্বামীর একক ইচ্ছায় হবে। যেখানে স্বামীকে তার স্ত্রীর প্রদেয় মোহর পরিশোধ করতে হবে এবং স্ত্রী কর্তৃক স্বামীকে প্রদেয় উপহারও ফিরিয়ে দিতে হবে। 

তৃতীয়: স্ত্রীর একক ইচ্ছায় ডিভোর্স দেয়া। যদি তার বিয়ের চুক্তিতে তথা তার নিকাহনামায় এটি উল্লেখ থাকে তবে এককভাবে স্বামীকে ডিভোর্স দিতে পারবে- এটাকে বলা হয় ‘ইসমা’।  চতুর্থঃ এ পদ্ধতিটি হলো, স্বামী যদি স্ত্রীর সাথে খারাপ আচরণ করে অথবা তাকে ন্যায্য অধিকার না দেয় তখন স্ত্রীর কাজীর কাছে যাওয়ার অধিকার আছে। এবং বিয়ে বাতিল করার আবেদন জানাতে পারবে। একে বলে ‘নিকাহ-ই-ফাসেদ’। তখন কাজী স্বামী কে পুরো মোহর পরিশোধ করার জন্য বলবে।  পঞ্চমঃ  এ পদ্ধতিটেকে বলা হয় “খোলা”। এক্ষেত্রে যদিও স্বামী সব দিক থেকে ভাল হয় এবং তার সম্পর্কে স্ত্রীর কোন অভিযোগ না থাকে তথাপি তার ব্যাক্তিগত কারণে স্বামীকে পছন্দ করেনা- তখন সে স্বামীকে অনুরোধ করতে পারে তাকে ডিভোর্স দেয়ার জন্য। আর এটাই হলো ‘খোলা’। 

 নারীর একক ইচ্ছায় তালাকের প্রমাণ:

থাবিত বিন কায়েসের স্ত্রী রসুলের নিকট আসিয়া বলিল, 

  ‘হে আলাহ’র রসুল ! থাবিত বিন কায়েসের চরিত্র বা দ্বীনদারীর উপর আমার কোন অভিযোগ নাই। কিন্তু আমার ভয় হইতেছে আমি আলাহ’র অনুগ্রহের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকিতে পারিব না’ (অর্থাৎ স্বামীর প্রতি কর্তব্যে গাফিলতি হতে পারে − হাদিস ২৪৮৩, হাফেজ আবদুল জলিল)।  ইহাতে রসুল বলিলেন, ‘তুমি কি তাহার বাগানটা ফেরৎ দিতে রাজি ?’ সে বলিল, ‘হ্যাঁ।’ অতএব সে তাহাকে বাগান ফেরৎ দিল এবং রসুল (দঃ) থাবিতকে তালাক দিতে বলিলেন। (এই স্ত্রীর নাম জামিলা − হাদিস নং ২০০)। 

দেখলেন ?  স্বামী ভালোবাসলেও কিংবা সে দ্বীনদারী ভাল মানুষ হলেও নারী বাধ্য নয় সে সংসার করতে যা তার মন চায় না। নারীকে ইচ্ছের এই প্রাকৃতিক অধিকার দিয়েছে কোরাণ ও রসুল। শুধুমাত্র স্ত্রীর ইচ্ছের ভিত্তিতে নবীজী বিয়ে বাতিল করেছেন এর প্রমাণ আরো আছে যেমন সহি ইবনে মাজাহ ৩য় খণ্ড ১৮৭৪। 

এর পরেও শারিয়া আইন “খুল্” বানানো হয়েছে যাতে,

স্ত্রী তালাক চাইলে কোর্টে মামলা করতে হবে। শারিয়া আইনে আছে শারীরিক অক্ষমতা, মারপিট, খরচ না দেওয়া ইত্যাদি বিশেষ দু’একটা কারণের স্পষ্ট প্রমাণ থাকলে কাজী নিজে থেকে বিবাহ বাতিল করতে পারেন। ওসব প্রমাণ না থাকলে কোর্ট স্ত্রীর কাছ থেকে টাকা নিয়ে স্বামীকে দিয়ে স্বামীর অনুমতির চেষ্টা করবে, নতুবা স্ত্রীর ইচ্ছের কোনই দাম নেই শারিয়া আইনে (বি-ই-আ ১ম খণ্ড, পৃঃ ১৫৮, ধারা ৩৫৫ ; শাফি’ই আইন #হ.৫.০, হানাফি আইন হেদায়া পৃষ্ঠা ১১২, শারিয়া দি ইসলামিক ল’ − ডঃ আবদুর রহমান ডোই, পৃঃ ১৯২)। 

  বাস্তবে তো আমরা দেখি ওসবের প্রমাণ কত কঠিন। তাছাড়া, কোন বিচারকই তো দেবতা নন। তিনিও অজ্ঞানতার দরুণ, আবেগের কারণে বা ঘুষ খেয়ে নারীর জীবন দোজখ করতে পারেন: দেখে নিন “শারিয়া, অতিতের দলিল” নিবন্ধ।  কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, নারী যে তার স্বামীকে ডিভোর্স দেয়ার এ পদ্ধতিগুলো গ্রহন করতে পারে সে কথা খুব কম লোকই বলে। কিছু আলেম-ওলামা আছেন যারা এ পাঁচ ধরনের ডিভোর্স কে ২ বা ৩ ভাগে ভাগ করেন; কিন্তু ব্যাপক অর্থে ইসলামে তালাক পাঁচ প্রকার।  আল্লাহ্‌ সকলকে সত্যকে জানার ও মানার তৌফিক দান করুন,আমিন। 

লিখেছেন: নয়ন চৌধুরী ।

[ Facebook: https://www.facebook.com/nayan.choudhary.148 ]

Share this: