আয়েশা رضي الله عنه এর বিয়ের বয়স নিয়ে অপপ্রচারের জবাব

আয়েশা رضي الله عنه এর বিয়ের বয়স নিয়ে ইসলাম বিদ্বেশীরা সুযোগ পেলেই সব-সময় অপপ্রচার করে। আয়েশা رضي الله عنه এর বিয়ে হয়েছিল ৬ বছর বয়সে। কিন্তু ৬ বছর বয়সেই তিনি সংসার জীবন শুরু করেননি। বরং ৬ বছর বয়সে বিবাহ হলেও মুহাম্মদ ﷺ এর সাথে যখন সংসার শুরু হয় তখন আয়েশা رضي الله عنه এর বয়স ছিল ৯ বছর। অর্থাৎ তাদের দুজনের দাম্পত্য জীবন যখন শুরু হয়; তখন আয়েশা رضي الله عنه এর বয়স ছিল নয় বছর। 

মরুভূমি অঞ্চলের মেয়েরা শীতপ্রধান অঞ্চলের মেয়েদের চেয়ে দ্রুত বয়ঃপ্রাপ্ত হয়। মরুভূমির মেয়েরা যেখানে ১০ বছর বয়সে বয়ঃপ্রাপ্তি লাভ করে সেখানে অনেক শীতপ্রধান অঞ্চলের মেয়েরা ১৩-১৫ বছর হয়ে গেলেও বয়ঃপ্রাপ্ত হয় না। ফ্রেঞ্চ ফিলোসফার Montesqueu তার ‘Spirit of Laws’ বইটিতে উল্লেখ করেছেন, উষ্ণ অঞ্চলে মেয়েরা ৮-৯-১০ বছর বয়সেই বিয়ের উপযুক্ত হয়ে যায়। বিশ বছর বয়সে তাদেরকে বিয়ের জন্য বৃদ্ধ ভাবা হয়। ‘Spirit of Laws’ বইটি আমেরিকার সংবিধান তৈরীতে ব্যবহৃত হয়েছে।

১৮৮০ সালের দিকে অধিকাংশ জায়গায় বিয়ের জন্য অনুমোদিত বয়স ছিলো ১০-১২ এর মধ্যে। আমরা যদি ইতিহাসে আরো পেছনে যেতে পারি তাহলে আরো কম বয়স লক্ষ্য করতে পারব। আবার যত সামনে এগুবো লক্ষ্য করলে দেখা যাবে অনুমোদিত বয়সের সীমা ক্রমাগত বাড়ছে। এর পেছনে অন্যতম প্রধান কারণ হলো মানুষের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন।

আজ থেকে ১৪০ বছর আগে মেয়েরা ১০ বছর বয়সে বিয়ের জন্য উপযুক্ত হলে তা মেনে নিতে যদি আমাদের আপত্তি না থাকে তাহলে ১৪০০ বছর আগে একজন নারীর নয় বছর বয়সে সংসার করা নিয়ে অভিযোগ তোলা কি নোংরা রাজনীতি নয়?

সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের "সেই সময়” একটি জনপ্রিয় গবেষণাধর্মী উপন্যাস। এর কালপর্ব ১৮৪০ থেকে ১৮৭০ খ্রিস্টাব্দ অবধি বিস্তৃত। মধ্য ঊনবিংশ শতাব্দীর কলকাতা এই উপন্যাসের পটভূমি। সেই সময়ের সংস্কৃতি, বিবাহ ও বিধবাদের অবস্থা সুন্দর ভাবে তুলে ধরেছেন। সেখানে কতো বছর বয়সে মেয়েদের বিয়ে হতো খোজ নিয়ে দেখেন। এ রকম হাজারও প্রমাণ হিন্দু ভাইদের লেখনিতে আছে।

৮০ বছর বয়সী আপনার দাদী কিংবা নানীকে জিজ্ঞেস করুন তাদের কত বছর বয়সে বিয়ে হয়েছিলো, সম্ভব হলে তাদের কাছ থেকে জেনে নিন তার দাদী এবং নানীর বিয়ে কত বছরে হয়েছিলো। তাহলেই আপনি সুন্দর ধারণা পেয়ে যাবেন।

আসুন, এবার একটু ইতিহাসে ফিরে যায় -

  • ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর যখন বিবাহ করেন তখন তার স্ত্রীর বয়স ছিল ৮ বছর। 
  • রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর যখন বিবাহ করে তখন তার স্ত্রীর বয়স ছিল ১১ বছর। 
  • দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর যখন বিবাহ করেন তখন তার স্ত্রীর বয়স ছিল ৬ বছর।
  • সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর যখন বিবাহ করেন তখন তার স্ত্রীর বয়স ছিল ৭ বছর। 

এরকম আরও অনেক উল্লেখ করা সম্ভব। প্রাচীন ইতিহাসে ফিরে গেলে আপনি দেখতে পাবেন আগেকার যুগে এমন বয়সেই নারীদের বিবাহ হতো। 

আপনাকে বেশী দূরে যেতে হবে না, উইকিপিডিয়ার তথ্যমতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখন শেখ ফজিলাতুন্নেসাকে বিয়ে করেন; তখন শেখ মুজিবুর রহমানের বয়স ছিল ১৮ বছর। অপদিকে শেখ ফজিলাতুন্নেসার বয়স ছিল মাত্র ৮ বছর। ইসলাম-বিরোধীরা এখন কী বলবে?  আপনি যদি একটু ইতিহাস নিয়ে লেখাপড়া করেন, তবে দেখতে পাবেন; আগেকার যুগে রীতি ছিল সন্তানদের ছোট থাকতেই কারও সাথে বিবাহ ঠিক করে রাখা। যেমন নিচের স্ক্রিনশটে দেখতে পাচ্ছেন যে, তাদের বিয়ে যখন ঠিক হয় তখন শেখ মুজিবুর রহমানের বয়স ছিল ১৩ বছর এবং শেখ ফজিলাতুন্নেসার বয়স ছিল মাত্র ৩ বছর। 

 

 

  • হিন্দুধর্মের শ্রীকৃষ্ণ

শ্রীকৃষ্ণ যখন রুকমিনিকে অপহরণ করে বিয়ে করে তখন আপনি কী জানেন রুকমিনির বয়স কত ছিল? বিবাহের সময় তখন রুকমিনির বয়স ছিল মাত্র ৮ বছর। প্রিয় পাঠক উগ্রবাদী হিন্দুরা যখন আপনাকে প্রশ্ন করবে, তখন একই প্রশ্ন আপনিও তাদেরকে করবেন শ্রীকৃষ্ণ রুকমিনির বিয়ের বয়স নিয়ে। 

এটা কিছুই না। হিন্দুধর্ম থেকে উল্লেখ করা শুরু করলে বিশাল একটি আর্টিকেল লিখা যাবে। শ্রীকৃষ্ণ ছাড়াও হিন্দুদের দেবতাদেরও রয়েছে এমন কাহিনী। কাজেই যেসব হিন্দুগণ আমাদের আয়েশা رضي الله عنه এর বিয়ের বয়স নিয়ে কটুক্তি করে, হাসাহাসি করে; তাদের নিজের ঘর! আই মিন তাদের নিজেদের ধর্মগ্রন্থ গুলো পাঠ করা উচিৎ। 

 

সমাপ্ত। 

Share this:

More articles

মূল লেখক: Ismail Hosen Emon  [নোটঃ— আর্টিকেলে কুরআন মাজীদ অনুযায়ী বিশুদ্ধ/সহীহ হাদিস মানা যে বাধ্যতামূলক তা উল্লেখ করা হবে।] ■ সর্বপ্রথম আমাদের জানতে হবে "আহলে কুরআন" কারা? হাদীস অনুযায়ী আহলে কুরআন হচ্ছেঃ-  إِنَّ لِلهِ أَهْلِينَ مِنْ النَّاسِ فَقِيلَ مَنْ أَهْلُ اللهِ مِنْهُمْ قَالَ أَهْلُ الْقُرْآنِ هُمْ أَهْلُ اللهِ ❝মানবমণ্ডলীর মধ্য হতে আল্লাহর কিছু বিশিষ্ট লোক আছে; আহলে কুরআন (কুরআন বুঝে পাঠকারী ও তদনুযায়ী আমলকারী ব্যক্তিরাই) হল আল্লাহর বিশেষ ও খাস লোক।❞[01] আহলে কুরআন বলতে ওই সকল ব্যক্তিবর....
35 Min read
Read more
আজকে আপনাদের সাথে আলোচনা করবো একটি নতুন ধর্ম নিয়ে। যার নাম নাস্তিক্য ধর্ম। আপনাদেরকে জানানোর চেষ্টা করবো নাস্তিক্য ধর্মে স্রষ্টা সম্পর্কে এবং কিভাবে সেই স্রষ্টাকে উপাসনা করতে হয়। সাথে পরিষ্কার করে দেবো নাস্তিক্য ধর্মের অবতারেরা কিভাবে তাদের ধর্মের প্রচার ও সামাজিক-রাষ্ট্রীয় ভাবে পরিচালনা করেছে। নাস্তিকদের এটা স্বীকার করতে তাদের কষ্ট হয় যে, নাস্তিকতাও একটা ধর্ম। নাস্তিকেরা যেন এই কথাটা স্বীকারই করতে চায় না। কারণ এটা স্বীকার করলে তাদের ধর্মের গোপন ও ভয়ংকর কিছু রূপ বের হয়ে আসে। যা নিয়ে স্ব....
9 Min read
Read more
বিসমিল্লাহির রহমানির রহীম খ্রিস্টান বনাম মুসলিম সংলাপ বিষয়: যীশু কতৃক বিঘোষিত সেই সাহায্যকারী কে? মুহাম্মদ ﷺ নাকি পবিত্র আত্মা? মানবসভ্যতাকে ধ্বংস থেকে রক্ষা করতে পৌলের উদ্ভাবিত যীশুর নামে প্রচারিত এ ভ্রান্ত মতবাদের স্বরুপ উন্মোচন করা জরুরি। কারণ পৌল পাপাচারের যে দরজা উন্মুক্ত করেছেন তা মানবসভ্যতাকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের সকল দেশের সকল ধর্মের ধার্মিক মানুষগুলো অন্তত মিথ্যা, নরহত্যা, ব্যভিচার, মাদকতা ও সকল প্রকার মহাপাপ থেকে নিজেদের কে মুক্ত রাখতে চেষ্টা করেন। পক্ষান্তরে পৌলে....
20 Min read
Read more
বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম খ্রিস্টান মিশনারিদের দলগুলো প্রায়ই মুসলিমদের বিরুদ্ধে ইসলাম নিয়ে মিথ্যাচার করে সম্মানিত নবী হযরত ঈসা আঃ কে, বাইবেলের আলোকে ভুল ব্যাখ্যা করে তাঁর ঈশ্বরত্ব দাবি করেন এবং এটাও বলেন যে, "মুসলিমদের নবী মুহাম্মদ নাকি তাঁর ঈশ্বরত্ব হওয়া সম্পর্কে মিথ্যাচার করেছে।" (নাউযুবিল্লাহী মিনযালিক; আস্তাগফিরুল্লাহ) ত্রিত্ববাদী খ্রিস্টানগণ সম্মানিত যীশু খ্রিস্টের ঈশ্বরত্ব দাবি করেন কিছু অস্পষ্ট ভার্স দিয়ে, যেখানে তাঁর ঈশ্বরত্বের পক্ষে সুস্পষ্ট কোন উদ্ধৃতি নেই বাইবেলের মধ্যে। তো কী সেই ভা....
4 Min read
Read more
নাস্তিকসহ কিছু মডারেট মুসলিমদেরকেও বলতে শুনা যায় যে, ইসলামে গান-বাজনা কেন নিষিদ্ধ! গান-বাজনা শুনতে সমস্যা কোথায়! এই লেখাটিতে গান-বাজনার ক্ষতিকর দিক, ইসলামে গান-বাজনা হারাম হওয়ার রেফারেন্স এবং কেন গান-বাজনা হারাম তা তুলে ধরা হয়েছে।  আল-কোরআনে গান-বাজনা হারাম  ● মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, وَمِنَ النَّاسِ مَنْ يَشْتَرِي لَهْوَ الْحَدِيثِ لِيُضِلَّ عَنْ سَبِيلِ اللَّهِ بِغَيْرِ عِلْمٍ وَيَتَّخِذَهَا هُزُوًا ۚ أُولَٰئِكَ لَهُمْ عَذَابٌ مُهِينٌ একশ্রেণীর লোক আছে যারা মানুষকে আল্লাহর পথ থেকে গোমরাহ কর....
17 Min read
Read more
আসসালামু আলাইকুম ওয়ারহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতাহু প্রিয় ভাই ও বোনেরা। আশা করি অবশ্যই সবাই মহান আল্লাহ্ সুবাহানাহু ওয়াতা'আলার অসীম রহমত ও দয়ায় ভালো এবং সুস্থ আছেন। সকল প্রশংসা এই বিশ্বজগতের সর্বোত্তম রব মহামহিমান্বিত আল্লাহ্ সুবাহানাহু ওয়াতা'আলার, যিনি বিচার দিনের মালিক। অসংখ্য কোটি দরুদ ও সালাম বর্ষিত হোক বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ ﷺ এর উপর, তাঁর পরিবারবর্গ, তাঁর প্রিয় সাহাবীগণের প্রতি এবং কিয়ামত পর্যন্ত আগত তাঁর অনুসারী সকল মুসলিম ভাই ও বোনদের প্রতি।   তো আজ আমরা গুরত্বপূর্ণ বিশেষ একটা টপিকে আলোচনা ....
26 Min read
Read more