বিজ্ঞানী ইয়াকুব বিন ইসহাক আল-কিন্দী কি মুসলিম ছিলেন না?

 

 

যদি প্রশ্ন করা হয় আল-কিন্দি কি মুসলিম ছিলেন?  নাকি না? 

তাহলে এর সহজ উত্তর হবে : হ্যা, তিনি মুসলিম ছিলেন।কেননা ইবন হাজার, ইবন তাইমিয়াহ, আয-যিরকিলী, ইবন হাজ্জাহ, ইবন আবি-উসাইবায়াহ, আস-সিফদী, আস-সুয়ুতী, আল-কিফতী, ইবন জুলজুল,আসামুদ্দিন, আবু-মু'শির, আশ-শাহরাস্তানী, ইবন নাবাতাহ, আল-কিন্দির সমসাময়িক সবাই সহ আরো অনেকেই আল-কিন্দিকে একদম সুস্পষ্টভাবে একজন "ইসলামের অন্তর্ভুক্ত দার্শনিক " হিসেবে গন্য করেছেন।[1] 

উনার মুসলিম হয়াতে কোনো সন্দেহ নেই।

তবে উনার ক্ষেত্রে বেশকিছু সমালোচনা আছে যেগুলো দ্বারা উনার মুসলিম হয়া মোটেও প্রশ্নবিদ্ধ হয়না।

সেই সমালোচনাগুলোর মধ্যে হতে প্রধান সমালোচনাগুলো উল্লেখ্য করে সেগুলোর পর্যালোচনা করা হলো।

উনার ব্যাপারে মুল সমালোচনা হলো এই ছয়টি : _[2]

(১) উনি দ্বীনের ক্ষেত্রে অভিযুক্ত ছিলেন।

(২) উনি গ্রিক দর্শন চর্চা করতেন ও এরদ্বারা তিনি প্রভাবিত ছিলেন।

(৩)উনার প্রচুর লেখাতে তিনি বিভিন্ন ভুলভাল বাতিল দৃষ্টিভংগি পোষন করেছেন ও বাস্তবতাবিরুধি মুলনিতী প্রনয়ন করেছেন।

(৪) তিনি লম্বা সময় যাবত কোর'আনের মত কিছু লিখার চেস্টা করেছিলেন, তবে শেষমেষ এটা স্বিকার করে নিয়েছিলেন যে কোর'আনের মত কোনোকিছু লেখা সম্ভব না।

(৫) উনি একজন দয়াহীন ও কৃপন মানুষ ছিলেন।

(৬) আল-কিন্দী গান-বাজনা নিয়ে বই লিখেছেন ও তিনি গানবাজনা শুনতেন।

পর্যালোচনা :

এসব অভিযোগের মধ্য হতে একটি দ্বারাও এটা প্রমানিত হয়না যে তিনি অমুসলিম ছিলেন। বরং এসব অভিযোগের দ্বারা বড়জোর এতটুকু প্রমানিত হয় যে তাঁর আকিদাহয় সমস্যা ছিলো এবং তিনি দ্বীনের প্রতি গাফেল ছিলেন।

দ্বীনের ক্ষেত্রে অভিযুক্ত হয়া আকিদাহতে সমস্যা ও দ্বীন মানার ক্ষেত্রে গাফলতি থাকাকে নির্দেশ করে, এরদ্বারা অমুসলিম হয়া বুঝায়না। গ্রিক দর্শন দ্বারা তিনি অনেকটাই প্রভাবিত ছিলেন, কিন্ত এতটাও না যে এরদ্বারা তাকে কাফের বলা যাবে, যদি তাই হতো তাহলে সবাই তাকে "ইসলামের দার্শনিক" হিসেবে গন্য করতেন না। তৃতীয় অভিযোগটি আল-গাযযালির উপরও করা হয়েছে।

চতুর্থ অভিযোগের ক্ষেত্রে বলব : মুল ঘটনাটা হচ্ছে অনেকটা এরকম যে : "একদা আল-কিন্দির কিছু ছাত্র তাকে কোর'আনের মত কিছু রচনা করতে বলেন। আল-কিন্দী এই কাজের জন্য অনেক লম্বা সময় নেন। এবং অনেকদিন পর তিনি এসে বলেন যে : আল্লাহর কসম, এইটা করা সম্ভব না "[2]। স্পষ্টতই, তিনি উক্ত চেস্টা হতে নিজেকে পরে রুজু করে নিয়েছিলেন।

দয়াহীন ও কৃপন হলে কেও অমুসলিম হয়ে যায়না। গানবাজনা হারাম, কেও হারাম কাজে লিপ্ত হলেই কাফের হয়ে যায়না।

প্রমানসমুহ :

[1]আল-ফাতাওয়াউল কুবরা (9/186),লিসানুল মিযান (8/531),আল-আ'লাম (8/195)
,ছামারাতুল আওয়ারক (1/104), উয়ুনুল আনবা (পৃ/286),আল-ওয়াফি বিল-ওয়াফিয়াত (28/78),জাহদুল কারিহাহ (পৃ/106), ইখবারুল উলামা (পৃ/274), আর-রাদ্বুন নাযার (2/160), আল-মিলাল ওয়ান নাহল (3/3), সারহুল উয়ুন (পৃ/231)

[2]আয-যাহাবী : সিইরু আ'লামিন নুবালা (12/337),ইবন হাজার : লিসানুল মিযান (8/527), ইবন আবি-আসিবায়াহ : উয়ুনুল আনবা (পৃ/287)






Share this:

More articles

  রাসুল ﷺ উরাইনাহ গোত্রের কিছু লোককে উটের পশ্রাব ও দুধ পান করার কথা বলেছিলেন। এপ্রসংগে অনেকগুলো হাদিস রয়েছে। সব হাদিসের সারমর্ম হলো অনেকটা এরকম  : "উরাইনাহ গোত্রের কিছু লোক অসুস্থ অবস্থায় মুহাম্মাদের ﷺ নিকট আসল। এসে ইসলাম গ্রহন করল, তারপর খাদ্য-পানি ও আশ্রয় দেয়ার অনুরোধ জানাল। মুহাম্মাদ ﷺ তাদের একটি নির্দিষ্ট স্থানে যেতে বললেন ও সেখানে গিয়ে উটের দুধ ও পশ্রাব পান করতে বললেন। তারপর তারা সুস্থ হলো, সুস্থ হয়ার পর তারা সেখানদের রাখালদের নির্মমভাবে হত্যা করল ও ইসলাম ত্যাগ করে মুরতাদ হয়ে গেল। রাখালদের....
8 Min read
Read more
    কোর'আনে ব্যবহৃত علقة [আলাক্বাহ] শব্দটির অর্থের ব্যাপারে বহু তর্ক-বিতর্ক আলোচনা সমালোচনা হয়ে আসছে। এই লেখাটিতে আলাক্বাহর অর্থ সম্পর্কে আলোচনা করা হবে। -------------------------------------------------আলাক্বাহর অর্থ রক্তপিন্ড হয়া প্রসঙ্গে : ------------------------------------------------- উলামাদের নিকট আলাকাহর যেই অর্থটি সবচেয়ে প্রসিদ্ধ তা হলো "রক্তপিন্ড"। এই পয়েন্টে আলাকাহর অর্থ রক্তপিন্ড হয়ার ব্যাপারে আলোচনা করা হবে। //*আলাকাহর অর্থ রক্তপিন্ড হয়ার ব্যাপারে সালাফদের অবস্থান : সালাফদের অন্তর....
20 Min read
Read more
বিসমিল্লাহির রহমানির রহীম খ্রিস্টান বনাম মুসলিম সংলাপ বিষয়: যীশু কতৃক বিঘোষিত সেই সাহায্যকারী কে? মুহাম্মদ ﷺ নাকি পবিত্র আত্মা? মানবসভ্যতাকে ধ্বংস থেকে রক্ষা করতে পৌলের উদ্ভাবিত যীশুর নামে প্রচারিত এ ভ্রান্ত মতবাদের স্বরুপ উন্মোচন করা জরুরি। কারণ পৌল পাপাচারের যে দরজা উন্মুক্ত করেছেন তা মানবসভ্যতাকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের সকল দেশের সকল ধর্মের ধার্মিক মানুষগুলো অন্তত মিথ্যা, নরহত্যা, ব্যভিচার, মাদকতা ও সকল প্রকার মহাপাপ থেকে নিজেদের কে মুক্ত রাখতে চেষ্টা করেন। পক্ষান্তরে পৌলে....
20 Min read
Read more
    ইসলামবিরুধিদের মধ্যে সবচেয়ে প্রচলিত একটি অভিযোগ হলো যে কোর'আনে আকাশ সম্পর্কে বহু হাস্যকর ও অবৈজ্ঞানিক কথাবার্তা রয়েছে। তাদের সেসমস্ত অভিযোগ নিয়ে এই লেখাটিতে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে ইনশাল্লাহ। আকাশের সংজ্ঞা : আরবি "سماء" শব্দটি আকাশ অর্থে ব্যবহৃত হয়। এটি এসেছে "السمو" হতে, যাদ্বারা "উচু হয়া, উপরে হওয়া " বুঝানো হয় [1]। উক্ত "سماء" শব্দটি দ্বারা এমন যেকোনোকিছুকে বুঝানো হয় যা উপরে রয়েছে  [2][3]।অর্থাৎ ভুপৃষ্ঠের উপরের যেকোনোকিছুই হলো سماء বা আকাশ, এহিসেবে মেঘ, বৃষ্টি, বাসার ছাদ থেকে শুরু করে সম....
50 Min read
Read more
মূল লেখক: Ismail Hosen Emon  [নোটঃ— আর্টিকেলে কুরআন মাজীদ অনুযায়ী বিশুদ্ধ/সহীহ হাদিস মানা যে বাধ্যতামূলক তা উল্লেখ করা হবে।] ■ সর্বপ্রথম আমাদের জানতে হবে "আহলে কুরআন" কারা? হাদীস অনুযায়ী আহলে কুরআন হচ্ছেঃ-  إِنَّ لِلهِ أَهْلِينَ مِنْ النَّاسِ فَقِيلَ مَنْ أَهْلُ اللهِ مِنْهُمْ قَالَ أَهْلُ الْقُرْآنِ هُمْ أَهْلُ اللهِ ❝মানবমণ্ডলীর মধ্য হতে আল্লাহর কিছু বিশিষ্ট লোক আছে; আহলে কুরআন (কুরআন বুঝে পাঠকারী ও তদনুযায়ী আমলকারী ব্যক্তিরাই) হল আল্লাহর বিশেষ ও খাস লোক।❞[01] আহলে কুরআন বলতে ওই সকল ব্যক্তিবর....
35 Min read
Read more
জিহাদ বলতে অমুসলিমরা সাধারণত "যুদ্ধ" বুঝে থাকে। খ্রিস্টান মিশনারীরা যখনই বিতর্কে হেরে যায়, তখনই আলোচনা ঘুরাতে ইসলামের জিহাদ নিয়ে মিথ্যাচার করা শুরু করে। আজ আমরা বাইবেলের আলোকে "যুদ্ধ" সম্পর্কে জানবো। যুদ্ধ নিয়ে বাইবেলে কী কিছু বলা আছে? বাইবেলের কিছু যুদ্ধের চিত্র আপনাদের সামনে তুলে ধরছি। ঈশ্বর নিজেকে, ঈশ্বর প্রমান করতে ১ লক্ষ ২৭ হাজার মানুষকে হত্যা করে: 23. রাজা বিন্হদদের রাজকর্মচারীরা তাঁকে বললেন, “ইস্রায়েলের দেবতারা আসলে পর্বতের দেবতা| আর আমরা পর্বতে গিয়ে যুদ্ধ করেছি তাই ইস্রায়েলের লোকরা জ....
17 Min read
Read more